সর্বশেষ:
ঢাকা, অক্টোবর ১৯, ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮

cosmicculture.science: বিজ্ঞানকে জানতে ও জানাতে
সোমবার ● ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
প্রথম পাতা » বিজ্ঞান সংবাদ: জীববিদ্যা ও বিবর্তন » ডাইনোসরদের পূর্বপুরুষ অর্ধেক ডাইনোসরের ফসিল আবিস্কার
প্রথম পাতা » বিজ্ঞান সংবাদ: জীববিদ্যা ও বিবর্তন » ডাইনোসরদের পূর্বপুরুষ অর্ধেক ডাইনোসরের ফসিল আবিস্কার
৩৩২ বার পঠিত
সোমবার ● ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ডাইনোসরদের পূর্বপুরুষ অর্ধেক ডাইনোসরের ফসিল আবিস্কার

প্রাণীটির ফসিল থেকে দেখা যায়, এদের পেলভিক হাড়ে একটি ভেতরের দিকে বাঁকানো অঞ্চল রয়েছে, যা দেখতে ডাইনোসরদের গর্তের মত। এই ধরণের প্রাণীদের মধ্যে লক্ষ বছরের ধারাবাহিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়েই ডাইনোসরের উদ্ভব ঘটেছিল বলে বিজ্ঞানীরা মত প্রকাশ করেছেন। ছবি সূত্র: NATURAL HISTORY MUSEUM, LONDON, ARTWORK BY MARK WITTON
আজ থেকে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি বছর আগে এই পৃথিবী দাবড়ে বেড়াত বিশাল সব ডাইনোসর। এদের উদ্ভব ঘটেছিল আজ থেকে ২৩ কোটি ২০ লক্ষ বছর থেকে ২৩ কোটি ৪০ লক্ষ বছর আগে। কিন্তু সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা প্রায় ২৪ কোটি ৫০ লক্ষ বছরের পুরনো কিছু ফসিল আবিস্কার করেছেন। যা ডাইনোসরের উদ্ভবেরও আরও এক থেকে দেড় কোটি বছরের পুরনো। এগুলো দেখতে অনেকটা ডাইনোসরের মত, কিন্তু ঠিক ডাইনোসর নয়।

কোনটি ডাইনোসর আর কোনটি ডাইনোসর নয় তা নিয়ে বিজ্ঞানীরা অনেক দিন ধরেই গবেষণা করে যাচ্ছেন। ডাইনোসরদের অন্তত পাচ ছয়টি নিজস্ব বৈশিষ্ট্য গবেষকদের জানা ছিল। কিন্তু যতই নতুন নতুন ফসিল আবিস্কার হচ্ছে বিজ্ঞানীরা ততই ডাইনোসরদের আরও নির্দিষ্টভাবে সনাক্ত করতে পারছেন। বিগত কয়েক দশকের গবেষণায় এই বৈশিষ্ট্যের তালিকা শুধু কমেই যাচ্ছে। এই ফসিলটি আবিস্কারের পর বিজ্ঞানীদের কাছে এখন মাত্র একটি নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা দেখে বিজ্ঞানীরা নিশ্চিতভাবে বলে দিতে পারবেন যে এটি একটি ডাইনোসর ছিল। আর তা হলো এদের পেলভিক হাড়ে থাকা একটি গর্ত (hip socket)।

নতুন পাওয়া প্রাণীটির ফসিল থেকে দেখা যায়, এদের পেলভিক হাড়ে একটি ভেতরের দিকে বাঁকানো অঞ্চল রয়েছে, যা দেখতে ডাইনোসরদের গর্তের মত। এই ধরণের প্রাণীদের মধ্যে লক্ষ বছরের ধারাবাহিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়েই ডাইনোসরের উদ্ভব ঘটেছিল বলে বিজ্ঞানীরা মত প্রকাশ করেছেন। অর্থাৎ এই প্রাণীদের পেলভিক হাড়ে কোন গর্ত না থাকলেও ঐ নির্দিষ্ট স্থানের হাড়ে ইতিমধ্যেই পরিবর্তন শুরু হয়ে দিয়েছিল। বিজ্ঞানীরা এই প্রাণীর নাম দিয়েছেন টেলিউক্রেটার রেডনাস (Teleocrater rhadinus)। এটি প্রায় ২ মিটার লম্বা ও সরু একটি প্রাণী। এরা চারপায়ে হাটাচলা করত। ভার্জিনিয়া টেকনোলজির গবেষক স্টারলিং নেসবেট ও তার সহকর্মীরা এই ফসিল নিয়ে আরও বিস্তারিত গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের ধারনা এই গবেষণা থেকে তারা ডাইনোসরদের উৎপত্তি সম্পর্কে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে পারবেন।

সম্পাদনা: হিমাংশু কর
সূত্র: নেচার




আর্কাইভ

ব্ল্যাকহোল থেকে আলোকরশ্মির নির্গমন! পূর্ণতা মিলল আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের
প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান
মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য
শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ
আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল
বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল
রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে!
বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০
মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা
ক্রিকেটের ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতি বা বৃষ্টি আইনের যুগ্ম প্রবক্তা গণিতবিদ টনি লুইস আর নেই