সর্বশেষ:
ঢাকা, আগস্ট ২, ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮

cosmicculture.science: বিজ্ঞানকে জানতে ও জানাতে
শুক্রবার ● ১৩ অক্টোবর ২০১৭
প্রথম পাতা » নোবেল পুরষ্কার:রসায়ন » ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কপি উদ্ভাবনের জন্য ২০১৭ সালে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ
প্রথম পাতা » নোবেল পুরষ্কার:রসায়ন » ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কপি উদ্ভাবনের জন্য ২০১৭ সালে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ
১৬৪ বার পঠিত
শুক্রবার ● ১৩ অক্টোবর ২০১৭
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কপি উদ্ভাবনের জন্য ২০১৭ সালে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ

২০১৭ সালে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন যথাক্রমে জোয়াকিম ফ্রাঙ্ক, রিচার্ড হ্যান্ডারসন ও জ্যাকস ডুবোশেট
ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কপি উদ্ভাবনের জন্য ২০১৭ সালে যৌথভাবে রসায়নে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন তিন বিজ্ঞানী - জোয়াকিম ফ্রাঙ্ক, রিচার্ড হ্যান্ডারসন ও জ্যাকস ডুবোশেট। তিন বিজ্ঞানীর মধ্যে সুইজারল্যান্ডের নাগরিক জ্যাকস ডোবেশেট ল্যুজান বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন। জার্মানিতে জন্মগ্রহণকারী জোয়াকিম ফ্রাঙ্ক অধ্যাপনা করেন নিউইয়র্কের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে। আর রিচার্ড হ্যান্ডারসন যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক।
তাদের এই উদ্ভাবনে দ্রবণে জৈব অণু পর্যবেক্ষণ করা যাবে আরও স্পষ্ট ও নিখুঁতভাবে। নোবেল কমিটির ঘোষণায় বলা হয়, ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপির মাধ্যমে জৈবিক অণুর উন্নতমানের প্রতিচ্ছবি ধারণ আগের চেয়ে অনেক সহজে করা যাবে। এর ফলে জীবদেহের জটিল সব কলকব্জা সম্পর্কে গভীরভাবে জানা সম্ভব হবে। এ পদ্ধতি প্রাণরসায়নের ক্ষেত্রে বড় ধরনের অগ্রগতি নিয়ে আসবে। এতদিন ব্যবহার হয়ে আসা বিভিন্ন প্রযুক্তির মাধ্যমে জীবদেহের আণবিক পর্যায়ের বহু কলকব্জার পূর্ণাঙ্গ ছবি পাওয়া কঠিন ছিল। ক্রিয়ো-ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপি ঠিক এ জায়গাটিকেই আমূল বদলে দিয়েছে। এ কৌশল ব্যবহার করে গবেষকরা এখন সহজেই গতিশীল যে কোনো জৈবিক অণুকে স্থবির করে দিতে পারবেন। আর নিতে পারবেন এমন সব কর্মকাণ্ডের প্রতিচ্ছবি, যা এতদিন একেবারেই অদৃশ্য ছিল। এ কৌশল প্রাণরসায়নের পাশাপাশি জীবন রক্ষাকারী ওষুধ তৈরির গবেষণাকেও বহুলাংশে এগিয়ে নেবে। তিন বিজ্ঞানীর এই আবিষ্কারের সুফল হিসেবে দেখা গেছে, প্রোটিন থেকে শুরু করে জিকা ভাইরাস- সব ধরনের জৈবিক অণুর প্রতিচ্ছবি ধারণ করা সম্ভব হচ্ছে এই আবিষ্কারের ফলে।





নোবেল পুরষ্কার:রসায়ন এর আরও খবর

বিবর্তনের ক্ষমতাকে নিয়ন্ত্রণের উপায় উদ্ভাবনের জন্য ২০১৮ সালে রসায়নে নোবেল বিবর্তনের ক্ষমতাকে নিয়ন্ত্রণের উপায় উদ্ভাবনের জন্য ২০১৮ সালে রসায়নে নোবেল
বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্রতর যন্ত্র তৈরির জন্য ২০১৬ সালে রসায়নশাস্ত্রে নোবেল পুরষ্কার বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্রতর যন্ত্র তৈরির জন্য ২০১৬ সালে রসায়নশাস্ত্রে নোবেল পুরষ্কার
ক্ষতিগ্রস্ত ডিএনএ সারিয়ে তোলার কোষীয় কৌশল আবিষ্কারের জন্য ২০১৫ সালে রসায়নে নোবেল ক্ষতিগ্রস্ত ডিএনএ সারিয়ে তোলার কোষীয় কৌশল আবিষ্কারের জন্য ২০১৫ সালে রসায়নে নোবেল
লাইট মাইক্রোস্কোপের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য ২০১৪ সালে রসায়নে নোবেল পুরষ্কার লাইট মাইক্রোস্কোপের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য ২০১৪ সালে রসায়নে নোবেল পুরষ্কার
রাসায়নিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়টিকে সাইবার জগতে নিয়ে আসার স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৩ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার রাসায়নিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়টিকে সাইবার জগতে নিয়ে আসার স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৩ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার
‘জি প্রোটিন কাপল্ড রিসেপটর’ সংক্রান্ত গবেষণায় ২০১২ সালে রসায়নে নোবেল পেলেন দুই মার্কিন গবেষক ‘জি প্রোটিন কাপল্ড রিসেপটর’ সংক্রান্ত গবেষণায় ২০১২ সালে রসায়নে নোবেল পেলেন দুই মার্কিন গবেষক
২০১১ সালে রসায়নে এককভাবে নোবেল পুরস্কার পেলেন ইসরায়েলি বিজ্ঞানী ড্যানিয়েল শেচম্যান ২০১১ সালে রসায়নে এককভাবে নোবেল পুরস্কার পেলেন ইসরায়েলি বিজ্ঞানী ড্যানিয়েল শেচম্যান
২০১০ সালে রসায়নে যৌথভাবে নোবেল পেয়েছেন রিচার্ড এফ. হেক, এই-ইচি নেগিশি ও আকিরা সুজুকি ২০১০ সালে রসায়নে যৌথভাবে নোবেল পেয়েছেন রিচার্ড এফ. হেক, এই-ইচি নেগিশি ও আকিরা সুজুকি

আর্কাইভ

প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান
মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য
শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ
আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল
বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল
রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে!
বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০
মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা
ক্রিকেটের ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতি বা বৃষ্টি আইনের যুগ্ম প্রবক্তা গণিতবিদ টনি লুইস আর নেই
গ্রহাণূ (52768) 1998 OR2 আগামী ২৯ এপ্রিল পৃথিবীকে নিরাপদ দূরত্বে অতিক্রম করবে