সর্বশেষ:
ঢাকা, অক্টোবর ৪, ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

cosmicculture.science: বিজ্ঞানকে জানতে ও জানাতে
শুক্রবার ● ৪ নভেম্বর ২০১১
প্রথম পাতা » বিজ্ঞান সংবাদ » বার্ধক্যকে ঠেকিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টা
প্রথম পাতা » বিজ্ঞান সংবাদ » বার্ধক্যকে ঠেকিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টা
২৭৯ বার পঠিত
শুক্রবার ● ৪ নভেম্বর ২০১১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

বার্ধক্যকে ঠেকিয়ে দেয়ার প্রচেষ্টা

গবেষকদের হিসাব করে দেখেছেন, বেশি বয়সী মানুষের শরীরের প্রায় ১০ শতাংশ কোষই বৃদ্ধ কোষ। এই senescent cell বা ‘বৃদ্ধ কোষ’ দূর করতে পারলে শরীরে বার্ধক্যের ছাপ পড়বে না।বিজ্ঞান সাময়িকী নেচার জানিয়েছে (২ নভেম্বর, ২০১১ অনলাইনে প্রকাশিত), মানুষের বুড়িয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সব থেকে বেশি ভূমিকা রাখে senescent cell বা ‘বৃদ্ধ কোষ’। এই কোষগুলো দূর করতে পারলে শরীরে বার্ধক্যের ছাপ পড়বে না।
সাধারণত অল্প বয়সে একটি কোষ বুড়িয়ে গেলেও শরীরের স্বাভাবিক প্রতিরোধ ব্যবস্থায়ই নতুন কোষ সৃষ্টি হয়। কিন্তু বয়সের একটা পর্যায়ে গিয়ে নতুন কোষ সৃষ্টি বন্ধ হয়ে যায়। তখন দিনে দিনে বৃদ্ধ কোষের সংখ্যা বাড়তে থাকে। আর এতেই বয়সের ছাপ পড়তে থাকে শরীরে। গবেষকদের হিসাব করে দেখেছেন, বেশি বয়সী মানুষের শরীরের প্রায় ১০ শতাংশ কোষই বৃদ্ধ কোষ।
এই প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের মায়ো ক্লিনিকের গবেষকেরা জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে জন্ম দেওয়া ইঁদুরের শরীর থেকে বৃদ্ধ কোষ সব ধ্বংস করে ফেলেন। এরপর দেখা যায় ওই সব ইঁদুর স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে আরও অনেক দেরিতে বুড়ো হচ্ছে। নতুন করে সৃষ্ট বৃদ্ধ কোষও মেরে ফেলা যাচ্ছে আবার ওষুধ প্রয়োগ করে। গবেষকরা তিনটি বিষয়কে বার্ধক্যের লক্ষণ হিসেবে ধরে থাকেন। এগুলো হলো: চোখে ছানি পড়া, পেশি সংকুচিত হওয়া এবং ত্বক কুচকে যাওয়া। কিন্তু গবেষকেরা জানান, ওষুধ প্রয়োগ করে বৃদ্ধ কোষ সরিয়ে ফেলার পর দেখা গেছে, বার্ধক্যের ওই সব লক্ষণ অনেক দেরিতে প্রকাশ পাচ্ছে।
অবশ্য এই পন্থা মানুষের আয়ুকালের উপরে কোন প্রভাব ফেলবে না। শুধুমাত্র বার্ধক্যের ছাপকে লুকিয়ে রাখবে মাত্র। তবে ইঁদুরের ওপর এটি সফলভাবে কাজ করলেও মানুষের ক্ষেত্রেও কিভাবে কাজ করবে তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। যদিও গবেষকরা আশাবাদ ব্যক্ত করছেন যে, শরীরের স্বাভাবিক প্রতিরোধব্যবস্থা যদি কিছুটা জোরালো করা যায় এবং এর মাধ্যমে বৃদ্ধ কোষ কমিয়ে রাখা যায়, তাহলে এই আবিস্কার কাজ করবে।
সূত্র: বিবিসি অনলাইন, নেচার অনলাইন।





বিজ্ঞান সংবাদ এর আরও খবর

<small>মহাবিশ্বের প্রারম্ভিক অবস্থার খোঁজে</small>জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম রঙীন ছবি প্রকাশ মহাবিশ্বের প্রারম্ভিক অবস্থার খোঁজেজেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম রঙীন ছবি প্রকাশ
ব্ল্যাকহোল থেকে আলোকরশ্মির নির্গমন! <small>পূর্ণতা মিলল আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের</small> ব্ল্যাকহোল থেকে আলোকরশ্মির নির্গমন! পূর্ণতা মিলল আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের
প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান
মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য
শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ
আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল
বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল
রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে! রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে!
বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০ বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০
<small>মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস</small> নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা

আর্কাইভ

মহাবিশ্বের প্রারম্ভিক অবস্থার খোঁজেজেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের প্রথম রঙীন ছবি প্রকাশ
ব্ল্যাকহোল থেকে আলোকরশ্মির নির্গমন! পূর্ণতা মিলল আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের
প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান
মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য
শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ
আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল
বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল
রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে!
বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০
মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা