সর্বশেষ:
ঢাকা, মে ১৩, ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮

cosmicculture.science: বিজ্ঞানকে জানতে ও জানাতে
সোমবার ● ৬ অক্টোবর ২০১৪
প্রথম পাতা » নোবেল পুরষ্কার: চিকিৎসা » মস্তিষ্কের ‘অভ্যন্তরীন জিপিএস’ ব্যবস্থা আবিস্কারের জন্য ২০১৪ সালে চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল
প্রথম পাতা » নোবেল পুরষ্কার: চিকিৎসা » মস্তিষ্কের ‘অভ্যন্তরীন জিপিএস’ ব্যবস্থা আবিস্কারের জন্য ২০১৪ সালে চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল
১০৩ বার পঠিত
সোমবার ● ৬ অক্টোবর ২০১৪
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

মস্তিষ্কের ‘অভ্যন্তরীন জিপিএস’ ব্যবস্থা আবিস্কারের জন্য ২০১৪ সালে চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল

আমরা কিভাবে জানতে পারি যে আমরা কোথায় রয়েছি? কিভাবেই বা আমরা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওযার রাস্তা খুঁজে পাই? কিংবা একই পথে পুনরায় চলার ক্ষেত্রে কিভাবে দ্রুততার সাথে পথ খুঁজে পাওয়ার তথ্য মস্তিস্কে ধারণ করে রাখি? এই অবস্থানগত সিস্টেমের বা মস্তিষ্কের ‘অভ্যন্তরীন জিপিএস’ ব্যবস্থা আবিস্কারের জন্য ২০১৪ সালে চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে।
এ বছর চিকিৎসাশাস্ত্রে যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার লাভ করেছেন ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত মার্কিন গবেষক অধ্যাপক জন ও’কিফি (John O´Keefe) এবং নরওয়েজিয়ান দম্পতি মে-ব্রিট মসার (May-Britt Moser) এবং এডভার্ড আই. মসার (Edvard I. Moser)।
জন ও’কিফি ১৯৭১ সালে সর্বপ্রথম এই পজিশনিং সিস্টেমের প্রথম উপাদানটি আবিস্কার করেন। তিনি ইদুরের ওপর গবেষণা চালানোর সময় খুঁজে পেয়েছিলেন যে মস্তিস্কের মধ্যে হিপ্পোক্যাম্পাস নামে একটি বিশেষ জায়গায় এক ধরনের স্নায়ু কোষ রয়েছে, যা কোন রুমের নির্দিষ্ট জায়গায় ইদুরটির অবস্থানকালীন সময়ে সক্রিয় হয়ে ওঠে। আবার অন্য স্নায়ু কোষগুলো ইদুরটির জায়গা বদল করে অন্যত্র অবস্থানকালীন সময়ে সক্রিয় হয়ে ওঠে। ও’কিফি সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে এই ‘প্লেস (place)’ কোষগুলো ইদুরের মস্তিস্কে রুমের একটি মানচিত্র গঠন করে।
এর প্রায় তিন দশক পরে ২০০৫ সালে মে-ব্রিট মসার ও এডভার্ড আই মসার মস্তিস্কের পজিশনিং সিস্টেমের অপর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান আবিস্কার করেন। তারা এই নতুন আবিস্কৃত কোষটির নাম দেন ‘গ্রিড (grid) কোষ’, যা একটি সমন্বিত সিস্টেম উৎপাদন করে এবং পথ অনুসন্ধানে ও অবস্থান নির্ণয়ে নির্ভুলভাবে নির্দেশনা দেয়।
জন ও’কিফি এবং মে-ব্রিট মসার ও এডভার্ড আই মসার এর এই আবিস্কার দার্শনিক ও বিজ্ঞানীদের শতাব্দীকালের সমস্যার সমাধানে সহায়তা করবে - কিভাবে মস্তিস্ক আমাদের চারপাশের স্থান সম্পর্কে মানচিত্র তৈরি করে এবং কোন জটিল পরিবেশে কিভাবে আমরা পথ খুঁজে পাই? এছাড়া কেনইবা আলঝেইমার আক্রান্ত মানুষ তাদের চারপাশের জিনিস চিনতে পারে না-তা জানতেও এই আবিষ্কার সহায়তা করবে বলে আশা করা যাচ্ছে।
ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত মার্কিন গবেষক অধ্যাপক জন ও’কিফি মে-ব্রিট মসার এডভার্ড আই. মসার



বিষয়: #  #  #  #


নোবেল পুরষ্কার: চিকিৎসা এর আরও খবর

ক্যান্সার থেরাপির নতুন তত্ত্ব উদ্ভাবনের জন্য ২০১৮ সালে চিকিৎসায় নোবেল ক্যান্সার থেরাপির নতুন তত্ত্ব উদ্ভাবনের জন্য ২০১৮ সালে চিকিৎসায় নোবেল
দেহকোষে প্রোটিন এবং অন্যান্য রাসায়নিক অনুর পরিবহন নিয়ন্ত্রণের কৌশল সম্পর্কে গবেষণার জন্য ২০১৩ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দেহকোষে প্রোটিন এবং অন্যান্য রাসায়নিক অনুর পরিবহন নিয়ন্ত্রণের কৌশল সম্পর্কে গবেষণার জন্য ২০১৩ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার
স্টেম সেল গবেষণায় ২০১২ সালে চিকিৎসায় নোবেল জয় স্টেম সেল গবেষণায় ২০১২ সালে চিকিৎসায় নোবেল জয়
২০১১ সালের চিকিৎসায় নোবেলজয়ী বিজ্ঞানীর মৃত্যু ২০১১ সালের চিকিৎসায় নোবেলজয়ী বিজ্ঞানীর মৃত্যু
২০১১ সালে চিকিৎসায় যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার পেলেন জুলস হফম্যান, ব্রুস বাটলার এবং রাল্ফ স্টেইনম্যান ২০১১ সালে চিকিৎসায় যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার পেলেন জুলস হফম্যান, ব্রুস বাটলার এবং রাল্ফ স্টেইনম্যান
২০১০ সালের চিকিৎসায় নোবেল পুরষ্কার নিয়ে ভ্যাটিক্যান সিটির কঠোর সমালোচনা ২০১০ সালের চিকিৎসায় নোবেল পুরষ্কার নিয়ে ভ্যাটিক্যান সিটির কঠোর সমালোচনা
২০১০ সালে চিকিৎসায় নোবেল পেয়েছেন টেস্টটিউব বেবির জনক রবার্ট জি. এডওয়ার্ড ২০১০ সালে চিকিৎসায় নোবেল পেয়েছেন টেস্টটিউব বেবির জনক রবার্ট জি. এডওয়ার্ড

আর্কাইভ

প্রথম চন্দ্রাভিযানের নভোচারী মাইকেল কলিন্স এর জীবনাবসান
মঙ্গলে ইনজেনুইটি’র নতুন সাফল্য
শুক্র গ্রহে প্রাণের সম্ভাব্য নির্দেশকের সন্ধান লাভ
আফ্রিকায় ৫০ বছর পরে নতুনভাবে হস্তিছুঁচোর দেখা মিলল
বামন গ্রহ সেরেসের পৃষ্ঠের উজ্জ্বলতার কারণ লবণাক্ত জল
রাতের আকাশে নিওওয়াইস ধূমকেতুর বর্ণিল ছটা,আবার দেখা মিলবে ৬,৭৬৭ বছর পরে!
বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০
মহাকাশে পদার্পণের নতুন ইতিহাস নাসার দুই নভোচারী নিয়ে স্পেসএক্স রকেটের মহাকাশে যাত্রা
ক্রিকেটের ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতি বা বৃষ্টি আইনের যুগ্ম প্রবক্তা গণিতবিদ টনি লুইস আর নেই
গ্রহাণূ (52768) 1998 OR2 আগামী ২৯ এপ্রিল পৃথিবীকে নিরাপদ দূরত্বে অতিক্রম করবে